Golden Bangladesh
Eminent People - মোহিউদ্দীন ফারুক

Pictureমোহিউদ্দীন ফারুক
Nameমোহিউদ্দীন ফারুক
DistrictGopalganj
ThanaNot set
Address
Phone
Mobile
Email
Website
Eminent Typeপ্রশাসন
Life Style

বাংলাদেশের সংবিধানে ৩১ ও ৩২ অনুচ্ছেদে জীবন ধারণের অধিকার নিশ্চিত করা হয়েছে৷ কিন্তু অপরিকল্পিত উন্নয়ন প্রকল্প, মাত্রাতিরিক্ত কীটনাশক ও রাসায়নিকদ্রব্য ব্যবহার, খাদ্যে ভেজাল ইত্যাদি নানাবিধ কারণে আমাদের পরিবেশ দুষিত হচ্ছে, সেই সাথে লঙ্ঘিত হচ্ছে জীবন ধারণের সাংবিধানিক অধিকার। মানবসৃষ্ট পরিবেশ দূষণের ফলে মানবাধিকার লঙ্ঘিত হচ্ছে। এধরনের মানবাধিকার লঙ্ঘনের বিরুদ্ধে আমাদের দেশে যিনি প্রথম আইনী পদক্ষেপ নিয়েছিলেন তিনি হচ্ছেন মোহিউদ্দীন ফারুক। জনস্বার্থে এধরনের মামলা করার পথিকৃত্‍ তিনি। ১৯৯৪ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশে পরিবেশ সংক্রান্ত কোনো মামলার নিস্পত্তি হবার নজির নেই। ১৯৯৪ সালে জানুয়ারীতে মোহিউদ্দীন ফারুক তাঁর প্রতিষ্ঠান 'বাংলাদেশ এনভারমেন্টাল ল'ইয়ার্স এসোসিয়েশন (বেলা)'-এর মাধ্যমে পরিবেশ ও জনস্বাস্থ্য সংক্রান্ত প্রথম মামলাটি দায়ের করেন। ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচনে পরিবেশ দূষণের দায়ে নির্বাচন কমিশনসহ চারটি সরকারী প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে রীট পিটিশন করা হয়। তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিল মেয়র ও কমিশনার প্রার্থীরা নির্বাচনী প্রচারণার নামে যে গুরুত্বপূর্ণ নাগরিক আইন (সিভিল ল) ভঙ্গ করছে তা বন্ধ করতে এ প্রতিষ্ঠানগুলো ব্যর্থ। বেলার এই রীট পিটিশনের প্রেক্ষিতে হাইকোর্ট এই প্রতিষ্ঠানগুলোর বিরুদ্ধে রুলনিশি জারি করে। এই মামলা শুনানি শেষে হাইকোর্ট বাংলাদেশের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো 'পরিবেশ দূষণ রোধে ব্যবস্থা গ্রহণের পক্ষে' রায় প্রদান করে। এছাড়া ১৯৯৬ সালে ড. ফারুক জনস্বাস্থ্য বিষয়ক আরেকটি মামলা দায়ের করেন। গুঁড়ো দুধে তেজস্ক্রিয়তা বিষয়ে এই মামলার রায়ের পর আমাদের দেশে আমদানিকৃত সকল দ্রব্যের একাধিক নমুনা সংগ্রহ করে তা পরীক্ষা করার নির্দেশ দেয়া হয়। এই রায়ের পূর্বে আমদানিকৃত দ্রব্য নির্দিষ্ট একটি স্থান থেকে নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষা করা হতো।

ড. মোহিউদ্দীন ফারুক ও তাঁর প্রতিষ্ঠান বেলা'র একটি উল্লেখযোগ্য কাজ হচ্ছে ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তি বা ব্যক্তিবর্গের পক্ষে তৃতীয় পক্ষের মামলা করার আইনগত অধিকার আদায়। সংবিধানের ১০২ নং অনুচ্ছেদ অনুযায়ী কেবলমাত্র সরাসরি ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তিরা মামলা করতে পারতো। এর ফলে আমাদের দেশে জনস্বার্থে মামলা (পাবলিক ইন্টারেস্ট লিটিগেশন বা পিআইএল) করার ক্ষেত্রে আইনগত প্রতিবন্ধকতা ছিল। মূলত পরিবেশ বিনষ্টকারী ও মানবাধিকার লঙ্ঘনকারী প্রকল্প 'ফ্লাড একশন প্ল্যান (এফএপি) ২০' এর বিরুদ্ধে বেলা মামলা দায়ের করে কিন্তু সারাসরি ক্ষতিগ্রস্তরা মামলাটি না করার কারণে আদালতে মামলাটি খারিজ হয়ে যায়। এই প্রেক্ষিতে ড. ফারুক সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগে ক্ষতিগ্রস্তের পক্ষে তৃতীয় পক্ষেরও (লোকাস স্ট্যান্ডি) মামলা করার অনুমোদন চেয়ে আপিল করেন এবং সুপ্রিম কোর্ট তাঁর এই আপিলের পক্ষে রায় দেয়। বৃহত্তর জনস্বার্থে আইনী সহায়তা লাভের ক্ষেত্রে এই রায় মাইলফলক হিসেবে কাজ করছে। মানবাধিকার রক্ষায় ড. মোহিউদ্দীন ফারুকের এই উদ্যোগ চিরদিন বাংলাদেশের মানুষের পাথেয় হয়ে থাকবে।

 জন্ম ও পারিবারিক পরিচয়


মানবাধিকারকর্মী মোহিউদ্দীন ফারুক ১৯৫৪ সালের ২৫ জুন গোপালগঞ্জ জেলায় জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর বাবার নাম হেমায়েত আহমেদ এবং মায়ের নাম আনোয়ারা আহমেদ। বাবা ব্যবসা করতেন এবং মা ছিলেন গৃহিণী। মা-বাবার মোট তিন ছেলে ও চার মেয়ের মধ্যে মোহিউদ্দীন ফারুক দ্বিতীয় সন্তান। বর্তমানে তার দুই ভাই খালিদ সাইফুল্লাহ ও মেজবাহউদ্দিন আহসান ব্যবসা করেন। চার বোন ড. আইনুন আফরোজা, জোবায়দা গুলশান, ইসমাত জাহান ও কানিজ ফাতেমা স্ব স্ব ক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠিত।

 শৈশব সময়


মোহিউদ্দীন ফারুকের শৈশব কেটেছে গোপালগঞ্জ শহরে। সংস্কৃতিমনা পরিবারে বেড়ে ওঠার সময় তিনি শিখেছেন সৃজনশীলতা। ছোটবেলা থেকেই কবিতা লিখে নজর কেড়েছিলেন পরিবারের বড়দের ও প্রতিবেশীদের। ভাই-বোনরা গান শিখতেন। ছোট ভাই খালিদ একজন কন্ঠশিল্পী। ভাই-বোনদের গানের রেওয়াজ দেখে মোহিউদ্দীন ফারুক ছোট বেলা থেকেই গান শিখতে শুরু করেন। গান শেখায় তাঁর উত্‍সাহ ছিল প্রচুর৷ সাধারণত তিনি হারমোনিয়াম বাজিয়ে গান গাইতে ভালোবাসতেন। পরিবারে, আত্মীয়স্বজন ও প্রতিবেশিদের বিভিন্ন অনুষ্ঠানে তিনি গান গেয়েছেন। কবিতা লেখা ও আবৃত্তির জন্য স্কুলের শিক্ষকরাও তাঁকে খুব স্নেহ করতেন। মেধাবী ফারুক ৬ষ্ঠ শ্রেণী পর্যন্ত গোপালগঞ্জ স্কুলে পড়ালেখা করেছেন। এরপর তিনি ঝিনাইদহ ক্যাডেট কলেজে ভর্তি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন। গোপালগঞ্জ ছেড়ে তাঁকে চলে যেতে হয় ক্যাডেট কলেজ ক্যাম্পাসে।

 শিক্ষাজীবন


মোহিউদ্দীন ফারুক ছিলেন অত্যন্ত মেধাবী এবং লেখাপড়ার প্রতি তাঁর আগ্রহ ছিল প্রবল। গোপালগঞ্জ জেলায় তিনি ৬ষ্ঠ শ্রেণী পর্যন্ত পড়ালেখার পর ৭ম শ্রেণীতে ঝিনাইদহ ক্যাডেট কলেজে ভর্তি হন। ঝিনাইদহ ক্যাডেট কলেজ থেকে এস.এস.সি. পাশ করার পর মোহিউদ্দীন ফারুক গোপালগঞ্জে ফিরে আসেন। গোপালগঞ্জ মডেল কলেজ থেকে এইচ.এস.সি. পাশ করেন। এরপর তিনি উচ্চশিক্ষা অর্জনের জন্য ঢাকায় চলে আসেন এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এল.এল.বি. অনার্স কোর্সে ভর্তি হন। ঢাকা ইউনিভার্সিটি থেকে ১৯৭৭ সালে দ্বিতীয় শ্রেণীতে এলএলবি অনার্স পাশ করেন এবং ১৯৮৯ সালে একই বিশ্ববিদ্যালয় থেকে প্রথম শ্রেণীতে প্রথম হয়ে এলএলএম পাশ করেন।

দিল্লীতে অবস্থিত ইনিস্টিটিউশন অব কনস্টিটিউশনাল এন্ড পার্লামেন্টারি স্টাডিজ থেকে ১৯৮১ সালে তিনি প্রথম শ্রেণীতে ডিপ্লোমা ইন কনস্টিটিউশনাল ল সম্পন্ন করেন। এই ডিপ্লোমায় তাঁর থিসিস ছিল "Rules ofLaw and its Ascendancy Over the Constitution of India"একই প্রতিষ্ঠান থেকে ১৯৮১ সালে তিনি প্রথম শ্রেণীতে পার্লামেন্টারি ইনিস্টিটিউশনস এন্ড প্রসিডিওর-এর ওপর আরেকটি ডিপ্লোমাএবং পার্লামেন্টারি ফেলোশীপ অর্জন করেন। এসময় তাঁর দুটি বিষয় থিসিস করতে হয়। থিসিস দুটির বিষয় হলো:Process ofLaw-Making in the Indian Parliament. এবং Suspension of Fundamental Rights During Emergency (With special reference to right to life and personal Liberty)এছাড়া ম্যানচেস্টার বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৯৮৫ সালে তিনি আন্তর্জাতিক আইন বিষয়ে আরো একটি গুরুত্বপূর্ণডিপ্লোমা ডিগ্রি পান। এসময় তাঁকে The Unacceptable Diplomatবিষয়ে একটি থিসিস তৈরি করতে হয়।

এই মেধাবী ও শিক্ষানুরাগী জীবনের অধিকাংশ সময় পড়ালেখার সাথে ছিলেন৷ আইন বিষয়ে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জনের পর তিনি বেশ কয়েকটি ডিপ্লোমা অর্জন করেও পড়ালেখার তৃষ্ণা মেটাতে পারেননি। প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার সর্বোচ্চ ডিগ্রি ডক্টোরেট ডিগ্রিও তিনি অর্জন করে নেন। ১৯৮৮ সালের জুলাই মাসে ম্যানচেস্টার বিশ্ববিদ্যালয় থেকে তিনি পিএইচডি ডিগ্রি অর্জন করেন। তাঁর পিএইচডি-এর থিসিস ছিল:Non-navigational Uses of the Waters of International Rivers: Right of Riparian States-Extent & Limits

 সংসার জীবন


মোহিউদ্দীন ফারুক ১৯৮৫ সালের ১৭ মে সেলিমা হক রিতার সাথে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন। পারিবারিকভাবে দেখাশোনার পর মোহিউদ্দীন ফারুক ও সেলিমা রিতার বিয়ে হয়। নববধূ সেসময় স্নাতক ডিগ্রিধারী ছিলেন। বিয়ের পর সেলিমা ফারুক রিতা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সমাজ বিজ্ঞানে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেন। স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে পরস্পরের প্রতি সম্মানবোধ, মতামতের গুরুত্ব এবং ভালোবাসা ছিল অকৃত্রিম। দুজনে মিলে সংসারটা যখন কেবল গুছিয়ে নিলেন ঠিক সেই সময়- ১৯৯৭ সালের ২ ডিসেম্বর জগত্‍ সংসার ছেড়ে চলে যান মোহিউদ্দীন ফারুক। স্ত্রী রিতার কাছে রেখে যান একটি মেয়ে এবং একটি ছেলে শিশু। সেলিমা ফারুক রীতা শিক্ষকতা করেন। এক ছেলে এবং এক মেয়ে। সেলিমা ফারুক রিতা এখন তার ছেলেমেয়েদের স্বামীর মতো মেধাবী এবং পরোপকারী ব্যক্তি হিসেবে গড়ে তুলতে চেষ্টা করছেন।

 কর্মজীবন


জ্ঞান অর্জনে মোহিউদ্দীন ফারুক যত সময় দিয়েছেন তার এক পঞ্চমাংশ সময় তিনি পেশাগত কারণে ব্যয় করতে পারেননি। আইনজীবী হিসেবে তিনি তাঁর পেশা শুরু করেন। তিনি ছিলেন সুপ্রিম কোর্টের একজন অ্যাডভোকেট। এছাড়া তিনি বাংলাদেশ এনভারমেন্টাল ল ইয়ার্স এসোসিয়েশন (বেলা) এর প্রতিষ্ঠাতা এবং এই প্রতিষ্ঠানের প্রতিষ্ঠাতা জেনারেল সেক্রেটারীর দায়িত্বে ছিলেন।

এছাড়া তিনি কনসালটেন্সি করেছেন বহু প্রতিষ্ঠানের। ইউএনডিপির কনসালটেন্ট হিসেবে বাংলাদেশ সরকারের জাতীয় পরিবেশ ব্যবস্থাপনার কর্মপরিকল্পনা করেন। পরিবেশ বিষয়ে গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্প প্রস্তাবনা ও পরিকল্পনাও তৈরি করেছেন তিনি। মোহিউদ্দীন ফারুক ইন্টারন্যাশনাল ইনিস্টিটিউটস অব এনভারমেন্টাল স্টাডিজ এন্ড ডিজাস্টার ম্যানেজমেন্ট, ঢাকা এ প্রিন্সিপল এক্সিকিউটিভ হিসেবে কাজ করেছেন। পরিবেশ বিষয়ে বিভিন্ন গবেষণা ও প্রশিক্ষণের জন্য তিনি দশটির মতো প্রকল্প প্রস্তাবনা তৈরি করেন। ১৯৮৯ সাল থেকে তিনি ইন্টারন্যাশনাল ইনিস্টিটিউটস অব এনভারনমেন্টাল স্টাডিজ এন্ড ডিজাস্টার ম্যানেজমেন্ট, ঢাকা এই প্রতিষ্ঠানের প্রকল্প পরিচালনার জন্য বিভিন্ন দাতাসংস্থার কাছ থেকে অর্থ সংস্থানের জন্য যোগাযোগ করে প্রতিষ্ঠানটি সচল রাখেন।

১৯৯৩ সালে কেয়ার বাংলাদেশের স্থানীয় সরকার শক্তিশালীকরণ প্রকল্পের কলসালটেন্ট হিসেবে কাজ করেছেন। একই বছরে ফোর্ড ফাউন্ডেশন এর সহযোগিতায় পরিবেশ বিষয়ে পাবলিক ইন্টারেস্ট লিটিগেশন প্রকল্পর সন্বয়কারী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। কিছু দিন তিনি নির্বাহী পরিচালক হিসেবে ডেভলপমেন্ট স্টাডিজ সেন্টারে দায়িত্বে ছিলেন। বাংলাদেশ ন্যাশনাল কনজারভেশন স্ট্রাটিজি-এর খসড়া

Rationale
UploaderRaihan Ahamed